শিরোনাম :
নবীনগরে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা, শিক্ষাবৃত্তি প্রদান ও শেখ হাসিনা একাডেমিক ভবন উদ্বোধন নবীনগরে ২৫টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে আশ্রয়ণ প্রকল্পের জমি সহ পাকাঘর প্রদান নবীনগরে পিস্তলসহ এক যুবক গ্রেফতার নবীনগরে মাদকাসক্ত ছেলের ছুরির আঘাতে পিতা হাসপাতালে- অবস্থা শঙ্কামুক্ত না হওয়ায় ঢাকায় প্রেরণ  নবীনগর পৌরসভার মেয়র শিব শংকর দাশ ৩ হাজার তালের চারা গাছ রোপন করেছেন নবীনগরে ২দিন ব্যাপী সাহিত্য মেলার উদ্বোধন নবীনগরে তুচ্ছ ঘটনায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ, আহত ৩০ নবীনগরে দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে মুক্তিযোদ্ধার বাড়ীতে হামলা ও ভাংচুর আটক (১)। নবীনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান  ফুল মিয়ার কুলখানি সম্পন্ন নবীনগরে কৃষি মেলার উদ্বোধন
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:৪৯ পূর্বাহ্ন

নবীনগরে দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে মুক্তিযোদ্ধার বাড়ীতে হামলা ও ভাংচুর আটক (১)।

প্রতিনিধির নাম / ১৬০ বার
আপডেট : সোমবার, ২৪ জুলাই, ২০২৩

আবু হাসান আপন নবীনগর প্রতিনিধি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার    ইউনি  য়নের দক্ষিন লক্ষিপুর গ্রামে বীর মুক্তিযোদ্ধা ৷৷৷      সার্জেন্ট আবদুল কুদ্দুস মিয়ার বাড়ি দখলের চেষ্ঠায় তাদের উচ্ছেদ করতে প্রতিপক্ষরা দেশীয় অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়ে বাড়িঘর ভাংচুর লুটপাট চালায়।

এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হলেও কোন আইনগত ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ। গতকাল রবিবার(২৩/৭)নির্যাতিত ওই অসহায় মুক্তিযোদ্ধা এক সংবাদ সম্মেলনে নবীনগর থানা পুলিশে বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করে ও তার জায়গা সম্পত্তি বাড়ি ঘর রক্ষাসহ ন্যায় বিচার প্রার্থনা করেছেন।

পরোক্ষণে বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে এই ঘটনায় জড়িত একই গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে মিরাজুল ইসলাম(১৯) কে গ্রেফতার করে নবীনগর থানা পুলিশ।

তথ্য সুত্রে জানা জানায়,জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে গত ১৯ জুলাই এলাকার প্রভাবশালী মৃত মাঞ্জু মিয়ার ছেলে আবুল হোসেন,আমজাদ হোসেন, আবুল হোসেনের ছেলে আবদুল্লা মিয়া ও ওবায়দুল মিয়া সংবদ্ধ হয়ে এ হামলা চালায়। হামলার বাড়ি ঘর ভাংচুরের প্রায় ৩ লক্ষ
টাকার ক্ষতি ও নগদ টাকা স্বর্নাংকারসহ প্রায় ৫ লাখ টাকার মালামাল লুট পাট করে নিয়ে যায়।

লিখিত বক্তব্যে মুক্তিযোদ্ধা জানান,চাকরী করার সুবাদে গ্রামে না থাকায় আমার ৫০ শতাংশ জায়গার মধ্যে ২০ শতাংশ জায়গা উক্ত ব্যক্তিরা জবরদখল করে রেখেছিল। উক্ত সম্পত্তি ফিরে পেতে দীর্ঘ ১০ বছর আদালতে মামলা চালিয়ে তিনি রায় পেয়েছেন। আদালতের রায়ের প্রেক্ষিতে তৎকালিন সহকারি কমিশনার(ভূমি) মোশারফ হোসেন উক্ত সম্পত্তির দখল তাকে বুঝিয়ে দেন।

কিন্তু ওই প্রতিপক্ষরার থেমে থাকেনি আমার পরিবার সহ আমকে উচ্ছেদের জন্য প্রায়ই নানান কৌশলে অত্যাচারসহ হামলা চালাতো সর্বশেষ গত ১৯ তারিখে বাড়ির নির্মান কাজ করার সময় এ হামলা চালায়। সাথে সাথে নবীনগর থানায় অভিযোগ দায়ের করি কিন্তু গত পাচঁদিন হয়ে গেল পুলিশ কোন ব্যবস্থাই গ্রহন করেনি। তিনি ও তার পরিবার এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আবুল হোসেন উক্ত জায়গা নিজস্ব সম্পত্তি দাবী করে বলেন,আমরা হামলা করিনি সে আমাদের জায়গা দখল করে বেড়া দিয়েছিল আমরা সেই বেড়া তুলে ফেলেছি। বিষয়টি গ্রামের সাহেব সর্দারা জানে। মিমাংসার আলোচনা চলছে।

এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ মাহবুবুল আলম বলেন,ব্যবস্থা গ্রহন করিনি এটা সঠিক নয়,অভিযোগ পাওয়ার পর আমার অফিসার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।পুলিশের খবর পেয়ে আসামীরা পালিয়ে যায়।সেই সময় স্থানীয় নেতৃবৃন্দ বিষয়টি মিমাংসার প্রস্তাব রাখে।যদি মিমাংসা হয় ভাল না হলে আমরা আইনগত যে ব্যবস্থা নেওয়ার সেটা নেব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ