Home / জাতীয় / শিক্ষার গুনগত মান উন্নয়নের জন্য শিক্ষক ও শিক্ষা অফিসারদের আন্তরিকতা অত্যান্ত জরুরী- মোসা.আনোয়ারা চৌধুরী

শিক্ষার গুনগত মান উন্নয়নের জন্য শিক্ষক ও শিক্ষা অফিসারদের আন্তরিকতা অত্যান্ত জরুরী- মোসা.আনোয়ারা চৌধুরী

তিতাস উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোসা. আনোয়রা চৌধুরী, তিতাস উপজেলা প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে তিতাস উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হিসেবে অত্যান্ত সুনামের সহিত দ্বায়িত্ব পালন করে আসছে। তিতাস উপজেলার সকল মাধ্যমিক প্রতিষ্ঠানের প্রিয় আপা আনোয়ারা চৌধুরী।  তিনি তিতাস উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষার গুনগত  মান উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন, যেমনঃ তিতাস উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা আই সি টি কমিটি, তিতাস উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা ম্যাথ কমিটি, তিতাস উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা ইংরেজি কমিটি,নিয়মিত সমন্বয় কমিটির মিটিং, কোচিং বানিজ্য প্রতিরোধ ও প্রতিকার কমিটি ইত্যাদি এবং ভবিষ্যত পরিকল্পনায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ডিজিটাল এটেন্ডেন্স চালু কার্যক্রম, উপজেলা পর্যায়ে শিক্ষকদের জন্য ট্রেনিং সেন্টার স্থাপন, কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন, ডিজিটাল মনিটরিং সিস্টেম প্রবর্তন র্কাক্রম, সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি কার্যক্রম, পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ ও বিভিন্ন ফি আদায় কার্যক্রম অনলাইনে চালুকরন। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীর ভর্তির অবেদন, পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ ও বিভিন্ন ফি আদায় কার্যক্রম অনলাইনে চালু করা ইত্যাদি। এই সফল তিতাস উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোসা: আনোয়ারা  চৌধুরী চৌধুরীর সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন শিক্ষাবার্তা ডট কম এর আন্তর্জাতিক সম্পাদক এবং তিতাস উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা আইসিটি কমিটির সহসভাপতিমোহাম্মদ শাহজামান শুভ।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ স্যার কেমন আছেন ?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ আলহামদুলিল্লাহ আমি বেশ ভালো আছি।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনি এই উপজেলায় আছেন কত বছর?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ প্রায় নয় বছর। আমি তিতাসউপজেলার প্রথম      মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার; যোগদান তারিখঃ ২৮/১০/১০

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ এর আগে এখানে কোন মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ছিল না?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ ভারপ্রাপ্ত ছিলেন।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ  আপনার উপজেলায় ক্লাশরুমে মাল্টিমিডিয়া ব্যবহার করেন?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ জি করেন? মানসস্মত শিক্ষা নিশ্চিতকরনে অত্র তিতাস উপজেলার ২০ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া সামগ্রী দেয়া হয়েছে এবং মাল্টিমিডিয়া ক্লাশরুম চালু রয়েছ।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনি সরকারিভাবে বিদেশ সফর করেছেন কতসালে?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ ২০১৭ সালে থাইল্যান্ডে।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার উপজেলায় কোন শিক্ষক সরকারিভাবে বিদেশ সফর করেছেন?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ জি, করছেন। গাজীপুর সরকারি খান মডেল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. আব্দুল বাতেন এবং সহকারি শিক্ষক মো. ফারুক মিয়া।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার উপজেলায় কানেক্টিং ক্লাশরুমের কোন কার্যক্রম আছে?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ জি, আছে। বৃট্রিশ কাউন্সিল কর্তৃক গৃহীত কানেক্টিং ক্লাশরুম পরিদর্শনের জন্য তিতাস উপজেলার বাতাকান্দি স. সা. আ. আ. হো. মেমো উচ্চ বিদ্যালয়ের দুই জন শিক্ষক যুক্তরাজ্যের লন্ডন ও লিংকন শ্যায়ার শহরের মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করেন।       

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ কোন কোন প্রতিষ্ঠান বৃট্রিশ কাউন্সিলের আই এস এ পুরস্কার পেয়েছেন?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ এই পর্যন্ত দুটি প্রতিষ্ঠান পেয়েছে। যেমনঃ বাতাকান্দি সরকার সাহেব আলি আবুল হোসেন মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় এবং মজিদপুর উচ্চ বিদ্যালয়।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার উপজেলায় কয়টি প্রতিষ্ঠানে স্টুডেন্ট ক্যাবিনেট আছে?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ শিক্ষার্থীদের মাঝে নেতৃত্বগুণ বৃদ্ধি করার জন্য সকল প্রতিষ্ঠানে স্টুডেন্ট ক্যাবিনেট ২০১৫ সাল থেকে শুরু হয়। অত্র তিতাস উপজেলার মোট ২২ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্টুডেন্ট ক্যাবিনেট গঠন করা হয়েছে।    

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার উপজেলায় কয়টি প্রতিষ্ঠানে শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব আছে?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনের প্রত্যয়ে অত্যাধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্পন্ন “শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব” অত্র তিতাস উপজেলার ৬ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্থাপন করা হয়। 

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার উপজেলায় কতভাগ শিক্ষককে আই সি টি ট্রেনিং দেয়া হয়েছে?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃতিতাস উপজেলার প্রায় ৯০ ভাগ শিক্ষককে বিগত ৯ বছরে আইসিটি ও বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক প্রশিক্ষন দেয়া হয়। এই প্রশিক্ষনের সাথে সাথে নতুন ভাবে ২০১৬ সাল থেকে হার্ডওয়্যার ও ট্রাবলশুটিং প্রশিক্ষন প্রদান করা হয়।     

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নয়নে  কী কী পদক্ষেপ নিয়েছেন?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ অত্র তিতাস উপজেলার বেশীরভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে অবকাঠামোগত উন্নয়ন সম্পন্ন করা হয়। এর মধ্যে ছিল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ওয়াশ ব্লক,স্বল্প উন্নত ওয়াস ব্লক নির্মাণ, ভবন নির্মান, শ্রেণীকক্ষ মেরামত ও সম্প্রসারন, পুন: নির্মান, মডেল স্কুল ভবন নির্মান ও গভীর নলক’প স্থাপন।     

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ডিজিট্যালাইজড করতে আপনার পদক্ষেপ কী?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ ২০১৩ সাল থেকে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে ই-মেইল এর মাধ্যমে যোগাযোগ করা হয় এবং সকল প্রতিষ্ঠনের ডায়নামিক ওয়েবসাইট খোলা।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ  শিক্ষার গুনগত  মান উন্নয়নে সহশিক্ষামুলক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃতিতাস উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা আই সি টি কমিটি, তিতাস উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা ম্যাথ কমিটি, তিতাস উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা ইংরেজি কমিটি, নিয়মিত সমন্বয় কমিটির মিটিং, কোচিং বানিজ্য প্রতিরোধ ও প্রতিকার কমিটি ইত্যাদি     শিক্ষক বাতায়ন সদস্যদের সক্রিয় করা, কিশোর বাতায়নে শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করা, মাল্টিমিডিয়া ক্লাশ বৃদ্ধি করা, আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে আগ্রহী করে তোলা, বাল্যবিবাহ রোধ ইভটিজিং প্রতিরোধ এবং জংগিবিরোধী প্রচারনার লক্ষ্যে তিতাস উপজেলায় এই কমিটিগুলো গঠন করা হয়েছে।        

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার উপজেলায় বাতায়নের সেরা কন্টেন্ট নির্মাতা আছে?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃতিতাস উপজেলায় শিক্ষক বাতায়নে ২০১৩-২০১৬ সালে পর্যন্ত তিতাস উপজেলার শিক্ষক সেরা কন্টেন্ট নির্মাতা নির্বাচিত হয়েছেন এবং এর ধারাবাহিকতা অব্যাহত আছে।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার উপজেলায় কয়জন ICT4Eঅ্যাম্বাসেডর কয়জন?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ জি, চারজন আছেন এবং এই ধারা অব্যাহত আছে এবং বৃটিশ কাউন্সিল কর্তৃক অ্যাম্বাসেডরও আছে।   

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার উপজেলায়  শিক্ষকদের আন্তর্জাতিক পুরস্কারপ্রাপ্ত আছেন?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ জি, ২০১৭ সালে তিতাস উপজেলার শিক্ষক গ্লোবাল ইনোভেশন এওয়াড অর্জন করেন।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ডিজিটাল এটেন্ডেন্স চালু কার্যক্রম, উপজেলা পর্যায়ে শিক্ষকদের জন্য ট্রেনিং সেন্টার স্থাপন, কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন, ডিজিটাল মনিটরিং সিস্টেম প্রবর্তন কার্যক্রম, সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভতি কার্যক্রম, পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ ও বিভিন্ন ফি আদায় কার্যক্রম অনলাইনে চালুকরন। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীর ভর্তির অবেদন, পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ ও বিভিন্ন ফি আদায় কার্যক্রম অনলাইনে চালু করা ইত্যাদি।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনার কার্যক্রম আরো বেগমান করার জন্য সরকারের নিকট কী কী প্রত্যাশা করেন?

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ চাহিদা তো অনেক, তবে আপাতত নিম্নোক্তগুলো খুবই প্রয়োজন; যথাঃ

০১. মাধ্যমিক ও সমপর্যায়ের/তদুর্দ্ধ পর্যায়ের শিক্ষকদের নিয়মিত ভাবে প্রশিক্ষণের আওতায় আনার জন্য তিতাস উপজেলায় ট্রেনিং সেন্টার স্থাপন করা প্রয়োজন। এই ট্রেনিং সেন্টারে ক্লাস্টারভিত্তিক ইনহাউজ প্রশিক্ষন ও বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করা যেতে পারে।       

০২.মাঠ পর্যায়ের কার্যালয়ের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য স্বয়ংসম্পূর্ন ও পৃথক উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস স্থাপন প্রয়োজন। বর্তমানে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস, তিতাস, কুমিল্লা বিভিন্ন যন্ত্রপাতি ও সামগ্রীর দিক থেকে স্বয়ংসম্পূর্ন থাকলেও কক্ষের অপ্রতুলতা রয়েছে। সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য সকল সুযোগ সুবিধা ও ট্রেনিং সুবিধা সম্বলিত ব্যানবেইস ভবনের আদলে ভবন নির্মাণ একান্ত প্রয়োজন।         

০৩.মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতকরনে অত্র তিতাস উপজেলার ১ টি মাদ্রাসা, ২টি স্কুল ও ১ টি কলেজ এমপিওভুক্ত করা প্রয়োজন। কেননা ননএমপিও থাকার কারনে যোগ্যতা সম্পন্ন শিক্ষকের অভাবে প্রতিষ্ঠান গুলো মানসম্মত শিক্ষা দিতে পারছে না।

০৪. পরীক্ষা কেন্দ্র বিভিন্ন জায়গায় অবস্থিত হওয়ার কারনে সকল কেন্দ্রে একই মানের পরীক্ষা গ্রহণ নিশ্চিত করা সম্ভব হয় না। কাজেই একই ধরনের পরীক্ষা নিশ্চিতকরনের জন্য সমন্বিত একটি পরীক্ষা কেন্দ্র উপজেলা সদরে স্থাপন করা প্রয়োজন।    

০৫.শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তদারকি আরো বাড়ানোর জন্য মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের জন্য ডিজিটাল মনিটরিং সিস্টেম চালু করা প্রয়োজন।      

০৬.সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ ও শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত ১:৪০ হয় সেজন্য প্রয়োজনীয় ভবন ও অবকাঠামো নির্মাণ করা প্রয়োজন। জরাজীর্ন পুরাতন ভবন

০৭.নীতিমালা অনুযায়ী তিতাস উপজেলায় আরও স্কুলকে সরকারী করন করা প্রয়োজন।

০৮. তিতাস উপজেলায় কোন কারীগরি ও ভোকেশনাল শিক্ষ প্রতিষ্ঠান নেই। কারীগরি ও ভোকেশনাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপন ফলপ্রসু হবে বলা যায়।  

০৯.তিতাস উপজেলায় শিক্ষার্থীর তুলনায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অপ্রতুল। উপজেলা সদরে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপন করা প্রয়োজন।

শিক্ষাবার্তা ডট কমঃ আপনি বিগত নয় বছরে তিতাস উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষার আমূল পরিবর্তান করেছেন। আরো উন্নয়নের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।  আমরাও আপনার চাহিদার সাথে একমত এবং সরকারের নিকট প্রত্যাশা করি যেন আপনার উপজেলায় গুনগত শিক্ষায় আরো নজর দিবেন। শিক্ষাবার্তায় সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারঃ আপনাকেও ধন্যবাদ।

Check Also

শাহসুফী আল্লামা মুহাম্মদ মাহমুদুর রহমান পীর সাহেব মাঃআঃ এর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

মুহাম্মদ মাহমুদুর রহমান ১৯৮১ ইং সনের ১লা মার্চ কুমিল্লা জেলা মুরাদনগর থানার সোনাকান্দা গ্রামের সম্ভান্ত ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *