Home / খেলার সংবাদ / মাশরাফির লক্ষ্য বাংলাওয়াশ: ধোনি বললেন, আমাকে সরিয়ে দিন

মাশরাফির লক্ষ্য বাংলাওয়াশ: ধোনি বললেন, আমাকে সরিয়ে দিন

২২ জুন (তিতাস নিউজ): ভারতের বিপক্ষে প্রথম দুই ম্যাচ হেসেখেলে জিতে সিরিজ দখল করেছে বাংলাদেশ। আগামী বুধবার তৃতীয় ও শেষ ম্যাচ জিতলেই ভারত পাবে বাংলাওয়াশের স্বাদ। টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার নজরও এখন সেদিকে। তবে এ নিয়ে কোনো চাপ নেই বাংলাদেশ অধিনায়কের মনে। অন্যদিকে, প্রথমবারের মতো পর পর দুই ম্যাচে বাংলাদেশের কাছে শোচনীয় পরাজয়ে ব্যাপক চাপ ও সমালোচনার মুখে আছেন ভারতের অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি।  দ্বিতীয় ওয়ানডেতে দলের একাদশ নির্বাচন নিয়ে এক ভারতীয় সাংবাদিক প্রশ্ন তোলায় একেবারে তেলেবেগুনে জ্বলে উঠেন ধোনি। ঠাণ্ডা মাথার জন্য ‘ক্যাপ্টেন কুল’ পরিচিতি পাওয়া ধোনি অভিমানী হয়ে বললেন, আমাকে সরিয়ে দিন।

রোববার রাতে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ম্যাচ-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে ভারতীয় সাংবাদিকদের একজন ভারত অধিনায়ককে জিজ্ঞেস করলেন— “আপনি কি ক্রিকেটটা আর উপভোগ করছেন? মনে হচ্ছে না, ওয়ান ডে অধিনায়কত্বেও এবার একটা বদল দরকার? ঠিক যা করে বিরাট কোহলিকে টেস্টে আনা হয়েছে?”

জবাবে ধোনি বলেন, “আপনাদের যদি মনে হয় আমার জন্যই ভারতীয় ক্রিকেট ডুবছে, আমাকে সরিয়ে দিলেই সব সমস্যা মিটে যাবে, তা হলে দিন না। আমাকে সরিয়ে দিন। আমি তো বলিনি আমাকে নিয়ে এসো। ক্যাপ্টেন করে দাও। আমি তখনই দায়িত্ব নিয়েছিলাম, যখন আমাকে নিতে বলা হয়েছিল। আজ যদি মনে হয় সেই দায়িত্বটা অন্য কাউকে দিলে ভালো হয়, তা হলে সেটাই হোক। আমার কোনও সমস্যা নেই। আমার কাছে দেশের হয়ে খেলাটাই সবচেয়ে বড় গর্ব।”

অজিঙ্ক রাহানেকে কোন যুক্তিতে টিমের বাইরে রাখলেন? এক সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের উত্তরে ভারতীয় অধিনায়ক বলেন, “যে উইকেটে পেস থাকে, সেখানে রাহানে খুব ভালো ব্যাট। কিন্তু এই উইকেটটা অন্য রকম ছিল।”

আপনি কেন স্টুয়ার্ট বিনিকে নিলেন না? এ প্রশ্ন জিজ্ঞেস করতেই ক্ষোভ ও শ্লেষ মেশানো কণ্ঠে ধোনি বলেন, “আমি তো বললাম যে, পেসার কমাতে চেয়েছিলাম। তার পরেও আপনারা বলছেন, স্টুয়ার্টকে কেন খেলাইনি। আরে, ক্যাপ্টেন তো আমি। টিমের যেটায় ভালো হবে বলে মনে হয়েছে, সেটা করেছি। আপনি যে দিন ইন্ডিয়া ক্যাপ্টেন হবেন, সে দিন দল নির্বাচন করবেন না হয়!”

‘টিম ইন্ডিয়া’র সাপোর্ট স্টাফ পাল্টানোর প্রয়োজন আছে কি না, তা নিয়েও প্রশ্ন করা হয়। ধোনি বলেন, “যাক, এত দিন পর তা হলে আপনারা ডানকান ফ্লেচারকে মিস করছেন! আর শুনুন, যে সাপোর্ট স্টাফকে পাল্টানোর কথা আপনারা বলছেন, তারাই কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার ওয়ানডে’র সময় দুর্দান্ত কাজ করেছিল। আর দুমদাম কাউকে কোচ করে এনে বসিয়ে দেয়ার দরকার আছে কি? রবি শাস্ত্রী তো আছেন, তাকে আপনাদের পছন্দ হচ্ছে না?”

ভারতের সফলতম অধিনায়ক বাংলাদেশের কাছে সিরিজ হারিয়ে স্বাভাবিকভাবেই হতাশ। তবে বাংলাদেশ দলের উন্নতিতে বিস্ময় প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের বর্তমান দলের উন্নতি অবাক করার মতো। তারা অনেক উন্নতি করেছে। বাংলাদেশের বোলিং আক্রমণ বেশ শক্তিশালী। আশা করি, তারা অনেক দূর যাবে।’

দুই ম্যাচে ১১ উইকেট নিয়ে ভারত-বধের নায়ক মুস্তাফিজুর রহমানেরও অকুণ্ঠ প্রশংসা করলেন ধোনি। বললেন, ‘আমি খুব কম বোলারের মধ্যে এত বৈচিত্র্য দেখেছি। সত্যিই মুস্তাফিজ দারুণ বোলার। তার ভবিষ্যৎ খুবই উজ্জ্বল। আরেকটু পরিণত হলে সে আরো ভালো করবে।’

সংবাদ সম্মেলনে উঠে এসেছে ভারতের হারের প্রসঙ্গও। এই ব্যর্থতার জন্য আগের ম্যাচের মতো ব্যাটসম্যানদের দায়ী করলেন ভারত অধিনায়ক, ‘আমরা বড় জুটি গড়তে পারছি না। এটাই এখন আমাদের ব্যাটিংয়ের প্রধান সমস্যা। তাই বাংলাদেশের সামনে বড় লক্ষ্যও দিতে পারিনি।’

tigersসংবাদ সম্মেলনের ভারতীয় অধিনায়ককে হতাশ এবং ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেলেও বাংলাদেশি অধিনায়ক ছিলেন উচ্ছ্বসিত। ভারতের মতো শক্তিশালী দলের বিপক্ষে সিরিজ জয় প্রসঙ্গে মাশরাফি বলেন, ‘আমাদের ক্রিকেট যে এগিয়ে যাচ্ছে, ভারতের বিপক্ষে টানা দুই ম্যাচ জয় তার বড় প্রমাণ। ভারত সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়ন এবং বর্তমান ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে দুই নম্বর দল। এমন একটা দলের বিপক্ষে জয় পাওয়া চাট্টিখানি কথা নয়। আমাদের এই সাফল্যের প্রধান কারণ খেলোয়াড়দের পরিশ্রম।’

বাংলাদেশের এই চমকপ্রদ সাফল্যের পেছনে মুস্তাফিজুর রহমানের অবদানকে বড় করে দেখছেন মাশরাফি। তিনি বলেন, ‘এ দুই ম্যাচে মুস্তাফিজের বোলিং এককথায় অসাধারণ ছিল। এ মুহূর্তে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সে আমাদের অন্যতম সেরা অস্ত্র। আশা করি, অন্তত ১০ বছর সে বাংলাদেশ দলকে এমন সার্ভিস দিতে পারবে।’

বাংলাওয়াশ নিয়ে কোনো চাপের মুখে আছেন কিনা- জানতে চাইলে মাশরাফি বলেন, ‘না, কোনো চাপ অনুভব করছি না। আমরা আমাদের স্বাভাবিক ক্রিকেট খেলেছি বলেই সাফল্য এসেছে। মাঠে খেলাটা উপভোগ করছি। সিরিজের শেষ ম্যাচেও এভাবে খেলতে চাই। সবাই যদি শতভাগ ফিট থাকে, নিজেদের সামর্থ্যের সেরাটা দিতে পারে, তাহলে সাফল্য আসবেই।’

দ্বিতীয় ওয়ানডের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে বলেছিলেন, এখনো খেলোয়াড়রা তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারেনি। এ সম্পর্কে মাশরাফির অভিমত, ‘জিতলেই যে পারফেক্ট ক্রিকেট খেলেছি, সে কথা আমি বলব না। তবে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে পারফেক্ট ক্রিকেট খেলতে পেরেছিলাম। ভারতের বিপক্ষে বৃষ্টি আর অন্যান্য কিছু কারণে নিজেদের আসল খেলাটা খেলতে পারিনি।’

মুস্তাফিজুর রহমানের দুর্দান্ত বোলিং আর সাকিব-মুশফিক-সৌম্য-লিটনের দৃঢ়তাপূর্ণ ব্যাটিংয়ে ঢাকার শের-ই বাংলা স্টেডিয়ামে ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ভারতকে ছয় উইকেটে হেসেখেলে হারিয়েছে বাংলাদেশ। এর ফলে ২০১৭ সালের জুনে অনুষ্ঠেয় চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে খেলা নিশ্চিত হয়েছে টাইগারদের। এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জয়ের পর স্বাগতিক দলের সামনে এখন আরো একটি বাংলাওয়াশের আনন্দে মেতে ওঠার স্বর্ণালি সুযোগ। সেটা সত্যিই হবে কি না, তা জানার জন্য তাকিয়ে থাকতে হবে তৃতীয় ওয়ানডের দিকে।

Check Also

সর্বকালের সেরা অধিনায়কদের তালিকায় মাশরাফি

১৬ জুলাই (তিতাস নিউজ): মাশরাফি নামক জাদুর কাঠির ছোঁয়ায় ২০১৫ সাল স্বপ্নের মত কাটিয়েছে বাংলাদেশের ...