Home / দাউদকান্দির খবর / নয়াদিগন্তে সংবাদ প্রকাশের পর দাউদকান্দিতে মা ফিরে পেল সন্তান

নয়াদিগন্তে সংবাদ প্রকাশের পর দাউদকান্দিতে মা ফিরে পেল সন্তান

নিজস্ব প্রতিনিধি॥
দৈনিক নয়াদিগন্তে সংবাদ প্রকাশের পর দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুরে ফিরে পেল এক মা তার প্রিয় সন্তানকে।
১০ সেপ্টেম্বর দৈনিক নয়াদিগন্ত পত্রিকায় ‘পরিবারে ফিরতে ব্যাকুল আরিফ’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশের পর আজ ১১ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকেলে দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুরের ‘সুকান্ত’ মার্কেটে হারিয়ে যাওয়া প্রিয় সন্তানকে ফিরে পেল তার মা মোমেনা বেগম।
জানা যায়, বিবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার কালিকচ্ছ মনিরবাগ গ্রামের ১৩ বছর বয়সী কিশোর আরিফকে তার অভাবী মা মোমেনা বেগম ৫ বছর পূর্বে গৃহকর্মী হিসেবে কাজে পাঠায় ঢাকার শাহজাহানপুর বেনজির বাগান ১০/১৩ নং এক ডাক্তার দম্পতির বাসায়।
কিন্তু অত্যাধিক কাজের চাপ সহ্য না করতে পেরে আরিফ ৩ বছর পর অজানায় হারিয়ে যায়। এরপর বহু খোঁজাখুঁজি করেও মা তার সন্তানকে না পেয়ে পাগলের মত দিনপাত করতে থাকেন।

ঘটনাক্রমে দাউদকান্দি নয়াদিগন্ত সংবাদদাতা মোহাম্মদ হানিফ খান গৌরীপুরের সুকান্ত মার্কেটে গেলে আরিফের বিষয়টি জানতে পারেন। হারিয়ে যাওয়া আরিফ স্থানীয় এক ব্যবসায়ী মোঃ আউয়ালের একটি কনফেকশনারীতে কাজ করছে জেনে তিনি আরিফের সাথে কথা বলেন। এ সংবাদদাতার কাছে আরিফ তার মা-বাবা ও গ্রামের নাম ব্যতীত আর কিছুই বলতে পারেনি। তারপরেও হাল ছাড়েননি হানিফ খান। তিনি আরিফের ছবিসহ দৈনিক নয়াদিগন্ত পত্রিকায় সংবাদটি প্রেরণ করলে তা ১০ সেপ্টেম্বর ছাপা হয়।
এই সংবাদের সূত্রধরেই আরিফের মা তার আত্মীয়-স্বজনদের নিয়ে হাজির হন দাউদকান্দির গৌরীপুরে এবং মা তার ছেলেকে পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। ছেলেও তার মাকে পেয়ে হাউমাউ করে কেঁদে ফেলে। এসময় উপস্থিত পাঠক সংগঠন তিতাস নয়াদিগন্ত প্রিয়জন উপদেষ্টা ইঞ্জি. আব্দুল লতিফ, দাউদকান্দি প্রিয়জনের উপদেষ্টা কবি-কলামিস্ট মো. আলী আশরাফ খান, দউিদকান্দি প্রিয়জনের সভাপতি মাও. মুহাম্মদ আবু ইউসুফ মুন্সী ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাহ্ আলম সরকারের উদ্যোগে আরিফের মা নগদ ৫ হাজার টাকা প্রদান করা হয়।
এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আরিফের আশ্রয়দাতা মোঃ আউয়াল, মেহনাজ হোসেন মীম আদর্শ কলেজের হিসাব বিজ্ঞানের প্রভাষক মোঃ আক্তার হোসেন, অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক মোঃ তাজুল ইসলাম, আরিফের আত্মীয় মোঃ আতিকুল ইসলাম, মোঃ এমদাদুল হক, সুকান্ত মার্কেটের মালিক সুধীর সাহা ও সামিউল বাশিরসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
এব্যাপারে আরিফের মা মোমেনা বেগম তার অভিব্যক্তি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন,‘ আমার স্বামী রাজ্জাক মিয়া আমাদের কোন খোঁজখবর নেয় না। আমি অভাবের তাড়নায় ছেলেকে ঢাকায় আমার এক আত্মীয়ের মাধ্যমে কাজে দেই। কিন্তু ৩ বছর পর আমার ছেলে হারিয়ে যায়। আজ আমার বুকের ধনকে পেয়ে আমি শুকরিয়া আদায় করছি এবং যারা আমার সন্তানকে আমার বুকে এনে দিলেন তাদের জন্য আমি দোয়া করি।’

Check Also

কুমিল্লার গৌরীপুর “রংধনু হসপিটালে” সিজারিয়ান অপারেশনে প্রসূতির মৃত্যু

আজ ২৭ আগষ্ট ১৮ ইং সোমবার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর “রংধনু হসপিটাল” এ সিজারিয়ান অপারেশনে এক ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *