Home / দাউদকান্দির খবর / দাউদকান্দিতে প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শন করে একের পর এক বাল্যবিবাহ মেধাবী ছাত্রী হাসনেহায়নার বিবাহও কি রুখতে পারবে না প্রশাসন?

দাউদকান্দিতে প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শন করে একের পর এক বাল্যবিবাহ মেধাবী ছাত্রী হাসনেহায়নার বিবাহও কি রুখতে পারবে না প্রশাসন?

নিজস্ব প্রতিনিধি॥
দাউদকান্দিতে প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শন করে একের পর এক বাল্যবিবাহের মত সামাজিক অপরাধ সংগঠিত হচ্ছে। উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে গত জানুয়ারি মাসে কম করে হলেও হাফ ডজন বাল্যবিবাহের ঘটনা ঘটেছে। এসব বাল্যবিবাহ ঠেকাতে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে প্রশাসন চেষ্টা করেও সফল হয়নি বলে জানা গেছে। এখন অনেকেই প্রশ্ন ছুঁড়ে দিচ্ছেন, তাহলে কি প্রশাসন ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছেন? নাকি আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে অবহেলা করছেন? এবারও কি মেধাবী ছাত্রী হাসনেহায়নার বিবাহও রুখতে পারবে না প্রশাসন?
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার তুজারভাঙ্গা গ্রামের সোলায়মান ব্যাপারী ও পারভীন আক্তারের কন্যা দাউদকান্দি আবিদ আলী পৌরসভা বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী সোনিয়া আক্তার (১৩) কে গত ২৩ জানুয়ারি হাসানপুর গ্রামের এক প্রবাসী পাত্রের সঙ্গে বিবাহ দেওয়া হয় ঢাকঢোল পিটিয়ে!
এছাড়াও ২৪ ও ২৫ জানুয়ারি উপজেলার কানড়া দুর্গাপুর গ্রামে পর পর দু’টি বাল্যবিবাহের ঘটনা ঘটে প্রশাসনের নির্দেশকে অমান্য করে। এর আগেও উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে আরও ৩টি বাল্যবিবাহের খবর সংগ্রহ করে দাউদকান্দি বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ কমিটি।
সবশেষ ৩১ জানুয়ারি উপজেলা সদরের শেরে বাংলা মডেল স্কুল সংলগ্ন একটি বাসায় বাল্যবিয়ের খবর পাওয়া যায়। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, স্থানীয় একটি স্কুল হতে এবার জেএসসিতে জিপিএ-৫ পাওয়া মেধাবী ছাত্রী হাসনেহায়না (১৩) কে বিয়ে দেওয়ার সব ব্যবস্থাই পাকা করে ফেলেছেন তার পরিবার।
জানা যায়, মুন্সীগঞ্জের চাষীরচড় গ্রামের মোঃ কবির উদ্দিন একজন চাকুরীজীবি। তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ দাউদকান্দি পৌরসদরে ভাড়া থাকেন। সে তার স্ত্রী রেহেনা আক্তারের অসুস্থতা ও ইভটিজিংয়ের অজুহাত দেখিয়ে ১৩ বছরের মেয়েকে বিয়ে দিচ্ছেন। সব ঠিকঠাক করে ফেলেছেন আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার বিয়ে উপজেলার শহীদনগরের এক প্রবাসী পাত্রের সঙ্গে।
এ সংবাদ পেয়ে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শামীমা সুলতানা, বৃহত্তর দাউদকান্দি উপজেলা ইভটিজিং, বাল্যবিয়ে ও যৌতুক প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক কবি আলী আশরাফ খান, সমাজকর্মী সাইফুল ইসলাম স্বপন, সাংবাদিক সেলিম আহমেদ ও মালীনা আক্তার মিলি ওই বাসায় গেলে মেধাবী ছাত্রী হাসনেহানার পিতা-মাতা জানান, ‘আমাদের মেয়েকে স্থানীয় শেরে বাংলা স্কুলের এক শিক্ষক দীর্ঘদিন ধরে ইভটিজিং করে আসছে। শুধু তাই নয়, ওই বখাটে বিবাহের প্রস্তাবও দেয় আমাদের। যার ফলে নিরুপায় হয়ে আমরা মেয়েকে বয়স কম হওয়ার পরেও বিবাহ দিচ্ছি’। তারা আরও বলেন, সম্মান আগে, সম্মান না বাঁচলে আমাদের বেঁচে কি হবে?’
দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আল-আমিন বলেন,‘ আমরা এসব ব্যাপারে সব সময় সজাগ দৃষ্টি রাখছি। অপরাধী যে-ই হউক, ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে অপরাধীদের যথাযথ শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে’।
উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শামীমা সুলতানা বলেন,‘যারা প্রশাসনের নির্দেশকে অমান্য করে এসব বাল্যবিবাহ দিচ্ছেন এবং করাচ্ছেন তাদের শীঘ্রই আইনের আওতায় আনা হবে’।
বৃহত্তর দাউদকান্দি উপজেলা ইভটিজিং, বাল্যবিয়ে ও যৌতুক প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক কবি আলী আশরাফ খান বলেন,‘যে করে হউক সমাজ হতে ইভটিজিং, বাল্যবিয়ে ও যৌতুকের মত মহাব্যাধিকে দূর করতেই হবে। প্রশাসনের পাশাপাশি সামাজিক সংগঠনগুলোকেও এগিয়ে আসতে হবে-এসব ভয়াবহ সামাজিক ব্যাধি প্রতিরোধে’।

মো. আলী আশরাফ খান
গৌরীপুর, দাউদকান্দি, কুমিল্লা।
তারিখ: ৩১-০১-২০১৭

Check Also

কুমিল্লার গৌরীপুর “রংধনু হসপিটালে” সিজারিয়ান অপারেশনে প্রসূতির মৃত্যু

আজ ২৭ আগষ্ট ১৮ ইং সোমবার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর “রংধনু হসপিটাল” এ সিজারিয়ান অপারেশনে এক ...